Accessibility links

Breaking News

উত্তর কোরিয়ার মানবাধিকার লংঘন আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার প্রতি হুমকি


ফাইল : জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত লিন্ডা টমাস-গ্রীনফিল্ড জাতিসংঘের সদরদপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে কথা বলছেন। তিনি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে উত্তর কোরিয়ার ব্যালিষ্টিক ক্ষেপনাস্ত্র সম্পর্কে মন্তব্য করেন। সেপ্টেম্বর ২৭,২০২২ ।

আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তার প্রতি ডেমোক্র্যাটিক পিপল’স রিপাবলিক অফ কোরিয়ার (উত্তর কোরিয়া বা ডিপিআরকে) হুমকিগুলোর বিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় যুক্তিসঙ্গতভাবেই উদ্বিগ্ন। এ ধরণের হুমকিগুলোর মধ্যে রয়েছে ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ; পারমাণবিক পরীক্ষার প্রস্তুতি গ্রহণ; এবং ক্রিপ্টো-কারেন্সি অবকাঠামোর বিরুদ্ধে সাইবার হামলা যা তাদের গণবিধ্বংসী অস্ত্র কর্মসূচিকে অর্থায়ন করে।

তবে, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, রিপাবলিক অফ কোরিয়া (দক্ষিণ কোরিয়া), ও বিশ্বজুড়ে আরও ডজনকয়েক অন্যান্য দেশ সহ মোট ৩১টি দেশ সাম্প্রতিক সময়ে, শোচনীয় মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার উত্তর কোরিয়ার বাসিন্দাদের প্রতি মনোনিবেশ করেছেন এবং তারা এ বিষয়ে এক যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর জাতিসংঘে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত লিনডা টমাস-গ্রীনফিল্ড এই যৌথ বিবৃতি প্রদান করেন।

৩১টি দেশের পক্ষে রাষ্ট্রদূত লিনডা টমাস-গ্রীনফিল্ড উল্লেখ করেন যে, উত্তর কোরিয়ার সরকার বিশ্বে “সবচেয়ে জঘন্য মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের একটি”। ১,০০,০০০ এরও বেশি মানুষকে রাজনৈতিক কারা শিবিরে বন্দি রাখা হয়েছে, যেখানে তারা মানবাধিকার লঙ্ঘনের শিকার হন, যার মধ্যে রয়েছে নির্যাতন, জোরপূর্বক শ্রম, বিনা বিচারে মৃত্যুদণ্ড, অনাহার, এবং লিঙ্গ ভিত্তিক সহিংসতা।

তিনি বলেন, “যারা রাজনৈতিক বন্দি শিবিরে নেই তাদের মৌলিক মানবাধিকার প্রত্যাখ্যান করা হয়, যেসব অধিকারের মধ্যে রয়েছে মত প্রকাশের স্বাধীনতা, তথ্যের স্বাধীনতা এবং এমনকি চিন্তার স্বাধীনতা।”

অন্যান্য দেশের নাগরিকরাও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে বিনা বিচারে মৃত্যুদণ্ড, গুপ্তহত্যা, নজরদারি, ভীতি প্রদর্শন, অপহরণ ও জোরপূর্বক নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন। তার সহপ্রতিনিধিদের পক্ষে রাষ্ট্রদূত টমাস-গ্রীনফিল্ড, উত্তর কোরিয়ায় আটক দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকদের মানবাধিকার পরিস্থিতি; জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়ার নাগরিকদের অপহরণ ও জোরপূর্বক গুম হওয়া; এবং অপ্রত্যাবর্তিত যুদ্ধবন্দিদের বিষয়ে বিশেষ উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

ঐ ৩১ প্রতিনিধির দেওয়া বিবৃতিটিতে উল্লেখ করা হয় যে, উত্তর কোরিয়ার শাসকগোষ্ঠীর চলমান মানবাধিকার লঙ্ঘনগুলো “দেশটির অবৈধ ও অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারী অস্ত্র কর্মসূচির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত”। শাসক গোষ্ঠীটির জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থাটি অর্থ-সম্পদকে অস্ত্র উন্নয়নের জন্য পরিচালিত করে, যদিও উত্তর কোরিয়ার নাগরিকরা ব্যাপক অর্থনৈতিক কষ্ট ও পুষ্টিহীনতায় ভুগছেন।

প্রতিনিধিরা বলেন যে, “আধুনিক বিশ্বে এমন বর্বরতার কোন স্থান নেই। দোষীদের জবাবাদিহিতার সম্মুখীন করার সকল প্রচেষ্টার আমরা প্রশংসা করি ও তাতে সমর্থন জানাই।”

“এই মানবাধিকার লঙ্ঘনগুলো আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তাকে হুমকিতে ফেলে, এবং এখন [নিরাপত্তা] পরিষদের বিষয়টি উন্মুক্তভাবে মোকাবেলা করার সময় হয়েছে। আমরা নিরাপত্তা পরিষদের সকল সদস্যের প্রতি অনুরোধ জানাই যাতে তারা ২০২৩ সালে এক উন্মুক্ত ব্রিফিং এর প্রতি সমর্থন দেন, যেখানে আমরা উত্তর কোরিয়ার সংঘটিত মানবাধিকার লঙ্ঘন ও নির্যাতন, [এবং] শান্তি ও নিরাপত্তার ক্ষেত্রে তার প্রভাব বিষয়ে আলোচনা করতে পারি, এবং এমন পন্থা অনুসন্ধান করতে পারি যাতে করে কোরীয় উপদ্বীপের শান্তি ও নিরাপত্তা বিষয়ক কূটনীতিতে মানবাধিকারকেও অন্তর্ভুক্ত করা যায়।”


[এই সম্পাদকীয়তে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের মতামত প্রতিফলিত হয়েছে]

XS
SM
MD
LG