Accessibility links

Breaking News

ইন্দো-প্যাসিফিকে শান্তি ও নিরাপত্তা বজায় রাখা


যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া ও াব্রটেনের নেতারা , এইউকেইউএস ‘এর ডবো জাহাজ নীতি নিয়ে আলোচনায় -

১৩ মার্চ, অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রীদের পাশে দাঁড়িয়ে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এইউকেইউএস হিসেবে পরিচিত ২০২১ সালের ত্রিপাক্ষিক নিরাপত্তা চুক্তির বড়রকমের অগ্রগতি বিষয়ে ঘোষণা করলেন।

সাম্প্রতিক এক সাক্ষাৎকারে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি বনি জেনকিন্স ব্যাখ্যা করেন,''এইউকেইউএস হল যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও অস্ট্রেলিয়ার একটি মিলিত উদ্যোগ এবং এই যৌথ উদ্যোগের অন্যতম মৌলিক দিক হল ইন্দো-প্যাসিফিক অঞ্চলে শান্তি ও নিরাপত্তাকে মজবুত করা।''

''প্রথম স্তম্ভ হল, অস্ট্রেলিয়াকে পরমাণু-শক্তিসম্পন্ন ডুবোজাহাজ দিতে সাহায্য করছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য।”

'দ্বিতীয় স্তম্ভ হল, উন্নত প্রযুক্তির প্রচার-প্রয়াসের প্রেক্ষিতে অন্যান্য দেশের সঙ্গে কাজ করা এবং এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, স্বশাসন, সমুদ্রগর্ভের সক্ষমতা, উন্নত সাইবার সক্ষমতা, কোয়ান্টাম সক্ষমতা, হাইপারসোনিক ও প্রতি-হাইপারসোনিক সক্ষমতা এবং বৈদ্যুতিন যুদ্ধাস্ত্রও।''

আন্ডার সেক্রেটারি জেনকিন্স উল্লেখ করেন, কয়েক দশক ধরে পরমাণু শক্তি-সম্বলিত ডুবোজাহাজ প্রশান্ত মহাসাগরে রয়েছে।

'৬০ বছরের বেশি সময় ধরে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের পরমাণু শক্তিধর ডুবোজাহাজ রয়েছে…গণপ্রজাতন্ত্রী চীন, রাশিয়া, ভারত ও ফ্রান্স সহ অন্যান্য দেশও পরমাণু শক্তিধর ডুবোজাহাজ ব্যবহার করেছে।''

আন্ডার সেক্রেটারি জেনকিন্স জোর দিয়ে বলেন, জলযানগুলো যেহেতু পরমাণু শক্তিসম্পন্ন, ফলে ''এই ডুবোজাহাজগুলি প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী সশস্ত্র।''

'এইউকেইউএসের এই চুক্তির তিন অংশীদারই পরমাণু বিস্তাররোধ চুক্তির সদস্য ও রাষ্ট্রীয় পক্ষ…অস্ট্রেলিয়া পরমাণু অস্ত্রবিহীন দেশ। পরমাণু অস্ত্রবিহীন দেশ হিসেবে থাকতে তারা অঙ্গীকারবদ্ধ। তারা পরমাণু অস্ত্র নির্মাণ করবে না।''

ইউকেইউএস যৌথতার প্রথম ঘোষণা থেকেই প্রেসিডেন্ট বাইডেন বস্তুত স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, পরমাণু বিস্তাররোধ হল শীর্ষ অগ্রাধিকার। এমনটাই জানিয়েছেন আন্ডার সেক্রেটারি জেনকিন্স।

পরমাণু বিস্তাররোধ চুক্তি মোতাবেক এইউকেইউএস সহযোগিদের কর্তব্য পূরণ করছে কিনা তা নিশ্চিত করতে আইএইএ-র সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে তিন সহযোগী রাষ্ট্রই নিয়মিত ভিয়েনা যাচ্ছে এবং পরমাণু বিস্তাররোধের সর্বোচ্চ আদর্শ তৈরি করছে।

আন্ডার সেক্রেটারি জেনকিন্স জানিয়েছেন,''২১ শতক সত্যিই সংজ্ঞায়িত হতে চলেছে ইন্দো-প্যাসিফিকের দ্বারা।''

''এবং তাই এটি এখন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হল যে, এই এলাকায় সহযোগিদের সঙ্গে আমাদের জোটকে আমরা আধুনিকীকরণ করব…এটি প্রকৃতই নিশ্চিত করতে যে, শান্তি ও নিরাপত্তা ইস্যুর নিরিখে ভবিষ্যৎ যাতে মজবুত হয়।''

আন্ডার সেক্রেটারি জেনকিন্স বলেছেন,'' বিজ্ঞান ও যাঁরা শিল্পের সঙ্গে যুক্ত তাঁরা এবং নাবিকদেরও সম্মিলিতভাবে কাজ করার ও তাঁদের [অভিন্ন] সক্ষমতা ও প্রযুক্তিকে উন্নত করার সুযোগ হিসেবে দেখছি আমরা একে, যা লক্ষ্যবস্তুকে তুলে ধরবে ।

এই সম্পাদকীয়তে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের অভিমত ব্যক্ত হয়েছে।

XS
SM
MD
LG