Accessibility links

Breaking News

শক্তিশালী করা হচ্ছে ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে অংশীদারিত্ব  


ক্যানবেরা সংসদ ভবনে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের সঙ্গে ভিডিওর মাধ্যমে কথা বলছেন, ১৬ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ ছবি, মিক টিসিকাস/.এপি

আগস্ট মাসে সিঙ্গাপুরে পররাষ্ট্রনীতি সম্পর্কিত ভাষণে ভাইস প্রেসিডেন্ট, কামালা হ্যারিস বলেন,"যুক্তরাষ্ট্র ইন্দো প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের একটি গর্বিত অংশ এবং এই অঞ্চলটি আমাদের দেশের নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধির ক্ষেত্রে সবিশেষ গুরুত্বপূর্ণ"I

ভাইস প্রেসিডেন্ট উল্লেখ করে বলেন, ইন্দো প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে বসবাস করছেন যুক্তরাষ্ট্রের নিকটতম কতিপয় মিত্র ও অংশীদার দেশসমূহI ওই অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের রপ্তানি ৪০ লক্ষ আমেরিকানের চাকুরীর সংস্থান করেছে I ২০১৯ সালে এই অঞ্চলের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র প্রায় দু লক্ষ কোটি ডলার সমমূল্যের দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পাদন করেI

তিনি জানান, লক্ষ লক্ষ লোকের জীবিকা নির্ভর করছে প্রতি দিন দক্ষিণ চীন সাগরের পথে চলা বহু কোটি ডলারের বাণিজ্যের ওপরI এই অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র নীতির একটি অংশ হচ্ছে সেখানে নৌ চলাচলে স্বাধীনতাI ভাইস প্রেসিডেন্ট হ্যারিস বলেন,"এটা আমাদের সকলের জন্য গুরুত্বপূর্ণ"I

সাগরে নৌচলাচলের স্বাধীনতা এবং অবারিত বাণিজ্য ছাড়াও, এই অঞ্চলে যুক্তরাষ্ট্রের নীতিতে অন্তর্ভুক্ত রয়েছে অন্যান্য আবশ্যকীয় কতগুলি বিষয়, যেমন শান্তি, স্থিতিশীলতা,মানবাধিকারের উন্নয়ন, আন্তর্জাতিক নীতিভিত্তিক বাধ্যবাধকতার প্রতি প্রতিশ্রুতি এবং সেই স্বীকৃতি যে আমাদের অভিন্ন স্বার্থগুলো নির্থক নয়।

যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ চীন সাগরসহ, আমাদের নীতির লক্ষ্যের প্রতি হুমকি দেখা দিলে আমাদের মিত্র ও অংশীদারদের পাশে থাকবেI ভাইস প্রেসিডেন্ট হ্যারিস বলেন, “বেইজিং দমননীতি, ভয়ভীতি প্রদর্শন এবং দক্ষিণ চীন সাগরের বিশাল এলাকা দাবি করা অব্যাহত রেখেছেI বেইজিংয়ের এহেন আচরণ আইনভিত্তিক নীতিকে খর্ব করা এবং বিভিন্ন দেশের সার্বভৌমত্বকে হুমকির মুখে ঠেলে দেওয়া অব্যাহত রেখেছে"I

ভাইস প্রেসিডেন্ট হ্যারিস স্পষ্ট করে দেন যে, দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া ও ইন্দো প্রশান্ত মহাসগরীয় এলাকায় যুক্তরাষ্ট্রের সম্পৃক্ততা, তাঁর কথায়, কোন দেশের বিরুদ্ধে নয়, বা কাউকে দুটি দেশের মধ্যে একটিকে বেছে নেয়ার লক্ষ্যে এটা করা হচ্ছে না, বরঞ্চ সেই সম্পৃক্ততা এই অঞ্চলে আমাদের আশাবাদকে এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যেই করা হয়েছে। আর সেই ভাবেই আমাদের অংশগ্রহণ এবং অংশীদারিত্বকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায।

সেই লক্ষ্য অর্জনে, যুক্তরাষ্ট্র দ্বিপাক্ষিক ও বহুজাতিক শীর্ষ কতকগুলি আঞ্চলিক অংশীদারিত্ব, আসিয়ান, QUAD গ্ৰুপ এবং মেকং-যুক্তরাষ্ট্র অংশীদারিত্ব উদ্যোগের মাধ্যমে আরো শক্তিশালী করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধI ভাইস প্রেসিডেন্ট হ্যারিস ঘোষণা করেন, যে যুক্তরাষ্ট্র ২০২৩ সালে এশিয়া প্যাসিফিক ইকোনমিক কোঅপারেশন ফোরাম বা APEC অর্থাৎ এশীয়-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অর্থনৈতিক সহযোগিতা সম্মেলন আয়োজনের প্রস্তাব দিয়েছেI

তিনি জলবায়ু পরিবর্তন ও বিশ্ব স্বাস্থ্য পরিচর্যার মত ইস্যুতে একত্রে কাজ করার প্রয়োজনীয়তার প্রতি বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেনI এছাড়াও তিনি বার্মাকে গণতন্ত্রায়নের পথে এগিয়ে নিতে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এই অঞ্চলের দেশগুলিকে যোগ দিতে আবেদন জানানI

ভাইস প্রেসিডেন্ট হ্যারিস বলেন, তাঁর কথায় "এখন থেকে বহু বছর পরে আমি আশা করি, আমরা সবাই এই মুহূর্তের কথা ভাববো এবং বলবো এই সময়টাতেই আমাদের এই অঞ্চলটি উন্নত ভবিষ্যতের আশায় একত্রিত হয়েছিল, এবং সকল জনগণের মান উন্নয়নে আমরা পদক্ষেপ নিয়েছিলাম"I

(ভিওএ)

XS
SM
MD
LG