Accessibility links

Breaking News

যুক্তরাষ্ট্র বর্মী প্রতিষ্ঠানকে সামরিক বাহিনীর সমর্থক বলেই চিহ্নিত করেছে


Anti-coup protesters gather outside U.S. Embassy in Yangon, Myanmar, Saturday, Feb. 13, 2021.

বর্মার সামরিক সরকার, গণতন্ত্রায়নের পথ পুনরুজ্জীবিত করতে অস্বীকার করেছে, বরঞ্চ তাকে লক্ষ্যবস্তু করেছে, যথেচ্ছভাবে দর্শকদের ওপর হামলা চালাতে  তারা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদকারীদের ওপর হামলা ও তাদের হত্যা করে চলেছেI এমনি এক বর্বরতার নজির ছিল, ২৭শে মার্চ নিরাপত্তা বাহিনীর নিষ্ঠূর হামলা, যে হামলায় ১০০ জনের মৃত্যু হয়I নিরাপত্তা বাহিনী সেখানে কয়েক ডজন শিশুসহ ৬০০ 'র অধিক লোককে হত্যা করেI 

বর্মার সামরিক সরকার, গণতন্ত্রায়নের পথ পুনরুজ্জীবিত করতে অস্বীকার করেছে, বরঞ্চ তাকে লক্ষ্যবস্তু করেছে, যথেচ্ছভাবে দর্শকদের ওপর হামলা চালাতে তারা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদকারীদের ওপর হামলা ও তাদের হত্যা করে চলেছেI এমনি এক বর্বরতার নজির ছিল, ২৭শে মার্চ নিরাপত্তা বাহিনীর নিষ্ঠূর হামলা, যে হামলায় ১০০ জনের মৃত্যু হয়I নিরাপত্তা বাহিনী সেখানে কয়েক ডজন শিশুসহ ৬০০ 'র অধিক লোককে হত্যা করেI

যুক্তরাষ্ট্র, তাদের এসব বর্বর সহিংসতার জবাবে , ১৪০১৪ নির্বাহী আদেশ বলে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান, মিয়ানমার জেমস এন্টারপ্রাইসকে শনাক্ত করেছেI বর্মার সামরিক বাহিনী তাদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে রত্ন-পাথর ও অন্যান্য প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবহার করে আসছে এবং এসব মূল্যবান পাথর বিক্রি ও ব্যবহারের ক্ষেত্রে মিয়ানমার জেমস এন্টারপ্রাইস সে দেশে শীর্ষ রত্ন-পাথর প্রতিষ্ঠানI এসব নিষেধাজ্ঞার লক্ষ্যবস্তু বর্মার সামরিক সরকার, সে দেশের জনগণ নয়I 'ফরেন এসেটস কন্ট্রোল বিভাগের পরিচালক, আন্দ্রেয়া গাকি বলেন, তাঁর কথায়, এই ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে বর্মার শীর্ষ সরকারি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানসহ সামরিক বাহিনীর অর্থায়নের সূত্রকে অস্বীকার করার রাজস্ব দপ্তরের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত হয়েছেI যুক্তরাষ্ট্র সরকার বিশ্ব তথা আঞ্চলিক শরিকদের সঙ্গে বর্মায় গণতন্ত্রকে পুনরায় প্রতিষ্ঠা, আইনের শাসন প্রবর্তন এবং এসব মূল্যবোধের অবমাননাকারীদের শাস্তি দিতে নিরলস প্রয়াস অব্যাহত রাখবে"I

নেপিদতে, 'মিয়ানমার জেমস এন্টারপ্রাইস' আয়োজিত একটি এম্পোরিয়ামে সামরিক নেতাদের অংশগ্রহণের সময়, যুক্তরাষ্ট্র এই ব্যবস্থা গ্রহণ করেI যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী, এন্টোনি ব্লিঙ্কেন এক বিবৃতিতে বলেন, এই সংস্থার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ কোরে, আমরা সামরিক বাহিনীর প্রতি স্পষ্ট বার্তা দিতে চাই যে, যতক্ষণ তারা সহিংসতা বন্ধ না করে, অন্যায়ভাবে আটককৃতদের মুক্তি দেয়, সামরিক আইন ও দেশব্যাপী জরুরি ব্যবস্থা তুলে না নেয় , টেলিযোগাযোগ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার এবং বর্মার গণতন্ত্রের পথ পুনরুজ্জীবিত না করে, যুক্তরাষ্ট্র তাদের আয়ের উৎসের প্রতি চাপ দিয়ে যাবে"I

যুক্তরাষ্ট্র সরকার, বিশ্ব তথা আঞ্চলিক শরিক ও মিত্রদের সঙ্গে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সমন্বয় সাধন করে সামরিক ও নিরাপত্তা বাহিনীর প্রতি শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদকারীদের বিরুদ্ধে সব ধরণের সহিংসতা বন্ধে এবং গণতন্ত্রয়ানের পথ পুনরুজ্জীবিত করতে সহায়তা, সামরিক অভ্যুথান ও জনগণের বিরুদ্ধে পাশবিক হামলার জবাবদিহিতা বৃদ্ধি করে, সেই প্রতিশ্রুতিতে অবিচল থাকবেI

editorial us myanmar
please wait
Embed

No media source currently available

0:00 0:02:36 0:00


XS
SM
MD
LG